নায়লা তারান্নুম চৌধুরী কাকলী

Posted on Posted in 2017, Bakul20170303

বকুল নামটাতেই মিষ্টি গন্ধ ছড়িয়ে পড়ে আমাদের চারপাশে। সত্যি ভীষণ মিষ্টি একটি মেয়ে আর মানুষ হিসেবেও সে মিষ্টি মনের মানুষ। বাহির থেকে সে ভীষণ উচ্ছ্বল, তা আমি বলব না। ভীষণ ধীরস্থির মানুষ হিসেবে তাকে জানি। আমি যখন কণ্ঠশীলনে কাজ করতাম তার কয়েক বছর পর থেকেই বকুল মুক্তধারা আবৃত্তি চর্চা কেন্দ্রের সাথে যুক্ত হয়েছে এবং তার এগিয়ে চলা ছিল নিরবচ্ছিন্ন। আমি তাকে চিনি বহুবছর ধরে কিন্তু বন্ধুতা হয়েছে ৬/৭ বছর আগে। এই বন্ধুটির সাথে সেতুবন্ধন তৈরিতে ভূমিকা রেখেছিল আরেকজন ভালো মানুষ কণ্ঠশীলনের রুবেল। তাই রুবেলের প্রতি রইল অসংখ্য ধন্যবাদ। বকুলের সাথে আমার মনের কোথায় যেন একটা টান রয়েছে। হয়তো আমাদের মধ্যে কথা হয় না প্রতিদিন তবুও তার জন্য একটা আকর্ষণ থেকে যায় হৃদয়ের অতলে।

সাংগঠনিক চর্চায় সে রয়েছে দীর্ঘদিন যাবৎ। আমার জানামতে, সংগঠনের প্রায় সব বৃন্দ আবৃত্তি, প্রযোজনা, একক আবৃত্তিতে সে দক্ষতার পরিচয় রেখেছে তেমনি নির্দেশক হিসেবেও তার কাজ প্রশংসার দাবীদার।

সাংগঠনিক চর্চায় সে অনেকখানি এগিয়ে থাকা একজন মানুষ। সুস্থ সংস্কৃতি চর্চায় এই বন্ধুকে পেয়েছি বিভিন্ন সাংস্কৃতিক আন্দোলনে রাজপথে আমাদেরই সাথে। তার একক আবৃত্তিসন্ধ্যায় আমি ভীষণভাবে আবেগে আপ্লুত। তাকে অনেক অনেক অভিনন্দন। মেয়ে হিসেবে অনেক প্রতিবন্ধকতা থাকে, তাকে দূরে সরিয়ে দিয়ে তুমি এগিয়ে যাও বন্ধু। জয় হোক সংস্কৃতিকর্মীদের, জয় হোক আবৃত্তির।